[gtranslate]

হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার ৩নং সাতকাপন ইউ/পি নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রার্থী


প্রাচেস্টা নিউজ প্রকাশের সময় : অক্টোবর ১৯, ২০২১, ৮:৫৪ পূর্বাহ্ণ / ৮৮
হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার ৩নং সাতকাপন ইউ/পি নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রার্থী

 

নিউজ ডেস্ক:

হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ ৩নং সাতকাপন ইউনিয়নের আসন্ন নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রার্থীরা আগে থেকেই মাঠ পর্যায়ে কাজ করে যাচ্ছেন । এবার সাতকাপন ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী ৮ জন । তারা হলেন সাবেক ছাত্র লীগ নেতা ও বর্তমান ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি শাইখুল ইসলাম জমশেদ । তিনি মাঠে না থাকলেও দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার চেষ্টা করছেন । সাবেক উপজেলা ছাত্র লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নারায়ণ চন্দ্র পাল ছাত্রলীগের রাজনীতি থেকে উঠে আসা তৃণমূল নেতা ও হিন্দু সম্প্রদায়ের কাছে তিনি আস্থাভাজন হিসেবে পরিচিতি রয়েছে । সবার সাথে মিশে চলার রীতি তার রয়েছে । মনোনয়নের আশাবাদী হয়ে তিনি মাঠেও রয়েছেন । সাবেক ছাত্রনেতা ও বর্তমান শ্রমিকলীগ নেতা সৈয়দ এনাম । গত নির্বাচনে তিনি মাঠের অবস্থা ভাল থাকলেও মনোনয়নে ব্যর্থ হওয়ায় নির্বাচন করেননি । এবার নৌকার টিকিট পেতে শ্রম দিয়ে যাচ্ছেন ।

সাবেক ছাত্র লীগ নেতা ওবর্তমান উপজেলা আওয়ামীলীগের উপ দপ্তর সম্পাদক ও মৎস্যজীবি সম্প্রদায়ের নেতা শাহ জালাল উদ্দিন । তিনি উপজেলা আওয়ামীলীগের কার্যক্রমে ওৎপ্রোতভাবে জড়িত রয়েছেন । এহিসেবে তার হাতেও নৌকা চলে আসতে পারে । আরেক তরুণ লীগ নেতা ও বিগত নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থী আয়াত আলী । তিনিও মনোনয়নের আশায় মাঠে ঘুরে বেড়াচ্ছেন । সাবেক ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ফজলু হক । তিনি নৌকা পেলে ভাটি অঞ্চলের মানুষের আস্থা অর্জন করতে পারেন । সাবেক ছাত্রনেতা ও বর্তমান আওয়ামীলীগনেতা সিরাজুল ইসলাম নৌকা পাওয়ার চেষ্টায় রয়েছেন । তিনি ধনাঢ্য ব্যক্তি হিসেবেও পরিচিতি রয়েছে । সাবেক দুই বারের চেয়ারম্যান ও হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা শাহ আহমেদ আওলাদও দলীয় মনোনয়ন পেতে চেষ্টা করছেন । তবে তিনি শারীরিক অসুস্থতা জনিত কারণে কর্মশক্তি অনেকটা নিম্নমুখী হওয়ায় তেমন একটা সুবিধাজনক অবস্থানে নেই ।

জাতীয় পার্টি নেতা ও বিগত নির্বাচনে লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত চেয়ারম্যান শাহ আব্দাল মিয়া আসন্ন নির্বাচনে অংশ গ্রহণ না করার কথা থাকলেও অবশেষে তিনি নির্বাচনে অংশ নিতেও পারেন । সাবেক দুই বারের চেয়ারম্যান আব্দুর রেজ্জাক ২ বার পরাজিত হলেও আবারো স্বতন্ত্র নির্বাচন করবেন বলে তার পারিবারিক সূত্র জানিয়েছে । বিগত বিএনপি জোটের খেলাফত মজলিসের প্রার্থী হয়ে প্রতিদন্ধন্ধিতা করেন জেলা শ্রমিক মজলিস নেতা সাংবাদিক সাঈদ আহমেদ । এবারও তিনি বিএনপি জোটের একমাত্র প্রার্থী হয়ে দেওয়াল ঘড়ি প্রতীকে নির্বাচন করার তোড়জোড়ভাবে মাঠে চষে বেড়াচ্ছেন । তিনি দীর্ঘদিন ধরেই ইউনিয়নের প্রতিটি গ্রামের মসজিদে , হাটে বাজারে বিশেষ করে যুব অঙ্গণে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে আসছেন । স্বচ্ছ কাজের প্রতিশ্রুতি দিয়ে প্রচারে নেমেছেন তিনি । মৎস্যজীবি সম্প্রদায়ের মাঝেও তার রয়েছে সুসম্পর্ক । কাজের দক্ষতায় এগিয়ে কিন্তু আর্থিকভাবে দুর্বল হলেও এবার যুবক ও শ্রমজীবি মানুষের সুদৃষ্টিতে চমকও দেখাতে পারেন সাংবাদিক সাঈদ আহমেদ ।

এদিকে আওয়ামীলীগ দলীয় মনোনয়ন কে পাবেন তা এখনো স্পষ্ট নয় । আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ৮ জনের মাঝে নারায়ণ চন্দ্র পাল , সৈয়দ এনাম , শাহ জালাল উদ্দিন এগিয়ে রয়েছেন বলে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে আলাপ করে জানা যায় । অপরদিকে বিএনপির একক প্রার্থী না থাকায় শরীক দল খেলাফত মজলিসের প্রার্থী সাঈদ আহমেদ , জাতীয় পার্টির শাহ আব্দাল মিয়া ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুর রেজ্জাকের নির্বাচনে অংশ গ্রহণ প্রায় নিশ্চিত ।