[gtranslate]

শিবগঞ্জ সাব-রেজিস্টারকে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগে বেধরক পিটুনি


প্রাচেস্টা নিউজ প্রকাশের সময় : জানুয়ারি ১১, ২০২৩, ৬:০৩ অপরাহ্ণ / ২২
শিবগঞ্জ সাব-রেজিস্টারকে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগে বেধরক পিটুনি

ফয়সাল আজম অপু, বিশেষ প্রতিনিধিঃ চাঁপাইনবাবগঞ্জ সাব-রেজিস্ট্রার ইউসুফ আলীকে (৪০) পিটিয়ে আহত করেছে ভুক্তভোগী জনতা। মঙ্গলবার (১০ জানুয়ারি) বিকেলে শিবগঞ্জ সাব রেজিস্ট্রার কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। আহত ইউসুফ আলীকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন জরুরী বিভাগের চিকিৎসক। স্থানীয়রা জানায়, শিবগঞ্জ সাব রেজিস্ট্রি অফিসের সাবেক এক কর্মচারী অবসরে যাওয়ার পর মারা যান। এরপর তার স্ত্রী প্রতিবন্ধী কন্যা সন্তানের অনুকুলে পেনসনের টাকা প্রাপ্তির জন্য সুপারিশের জন্য শিবগঞ্জ সাব রেজিস্টার ইউসুফ আলীর কাছে প্রায় ১৫ মাস ধরে ঘুরেও কোনো সুরাহা মেলেনি। উল্টো কাজ না করে হয়রানির অভিযোগ করা হয়। দলিল লেখকদের অযথা হয়রানির অভিযোগসহ, ঘুষ, দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগও পাওয়া গেছে। এমন সাধারণ মানুষের ক্ষোভ থেকেই এমন ঘটনা ঘটেছে। ভুক্তভোগী কয়েকজন বলেন, কাজ না করে হয়রানী ও অতিরিক্ত টাকা দাবি করেন ওই সাব রেজিস্টার। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন সেবাগ্রহীতা বলেন, আমার একটি দলিল ঠিক করতে সাব-রেজিস্টার ইউসুফ আলী প্রায় ৬ লাখ টাকা ঘুষ চান।সেটা না দেয়ায় আমার দলিল ঠিক না করে, উল্টো আমাকে হয়রানির পাশাপাশি আমার সাথে খারাপ ব্যবহার করেছে।এ ব্যাপারে সাব-রেজিস্টার ইউসুফ আলীর ফোনে বেশ কয়েকবার যোগাযোগ করা হলে কেউ ফোন রিসিভ করেন নি।শিবগঞ্জ সাব-রেজিস্টার দলিল লেখক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল হক সিলু বলেন, সেলিম ও ইউসুফ আলী দীর্ঘদিন ধরে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে দলিল প্রতি অতিরিক্ত টাকা নিতো। আর একারণে সাব-রেজিস্টারকে মারধোরের এই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেছে।শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবুল হায়াত বলেন, অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার কারণে এমন ঘটনা ঘটেছে। তিনি সব কাজ টাকা নিয়ে করে দেন। এমনটাই শুনেছি আমি। মানুষের অতিরিক্ত ক্ষোভের প্রকাশ এটি।শিবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) চৌধুরী জোবায়ের আহমেদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে মুঠোফোনে বলেন, সাব-রেজিস্টার ইউসুফ আলীকে, কে বা কারা মারধোর করেছে জানিনা। তবে তাকে পুলিশের একটি টিম গিয়ে উদ্ধার করে শিবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।জেলা সাব-রেজিস্টার রেজিস্টার আফসানা খাতুন বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি। তবে তাৎক্ষণিক বিস্তারিত বলা সম্ভব নয় বিস্তারিত তদন্ত সাপেক্ষ পরে জানাব।