[gtranslate]

রমজান সিয়াম সাধনার মাস। আর কিছু দিন পরই পবিত্র মাহে রমজান


প্রাচেস্টা নিউজ প্রকাশের সময় : মার্চ ২০, ২০২৩, ৬:২৯ অপরাহ্ণ / ২৭
রমজান সিয়াম সাধনার মাস। আর কিছু দিন পরই পবিত্র মাহে রমজান

মো: লিটন উজ্জামান (ভেড়ামারা) কুষ্টিয়া) :

পবিত্র মাহে রমজান আর কিছু দিন পরই। সিয়াম সাধনার এই মাস মুসলিম সম্প্রদায়ের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি সময়। প্রতিদিনের রুটিন মাফিক জীবনের সঙ্গে মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের আশায় পানাহার থেকে নিজেকে বিরত রাখা পাশাপাশি নফল ইবাদতের মাধ্যমে ব্যস্ত থাকেন সবাই। তাই রোজা আসার আগেই থেকেই কিছু বিষয়ে রাখা প্রয়োজন আগাম প্রস্তুতি। এতে রোজার মাসে যেমন কাজের চাপ অনেক খানি কমে যাবে তেমনই আপনি আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভে বেশি বেশি ইবাদতের জন্য ও সময় পাবেন খানিকটা বেশি। রোজার মাসের জন্য আলাদা তালিকা তৈরি করে নিতে পারেন। যেহেতু রোজা রেখে দীর্ঘ সময় পর খাওয়ার কিংবা পানি পান করতে পারছেন। তাই খাবারের তালিকায় পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি এবং সুষম খাবার থাকছে কিনা তার খেয়াল রাখুন। বাসার সব বয়সের মানুষের কথা মাথায় রেখে খাবারের তালিকা করুন। যাতে করে রোজার মাসে ও সবার প্রয়োজনের বিষয়টি নিশ্চিত করা যায়।চেষ্টা করুন খাবার মাসেই তুলে রাখার। বাড়তি আলাদা করে খাবার মজুত করার প্রয়োজন নেই।কেবল যা যা আপনি আলাদাভাবে যুক্ত করতে চাচ্ছেন তার একটা তালিকা করে নিন।শুধু খাবারে নয় ওষুধের বেলায়ও খাবার সময়ের পরিবর্তন আসে।তাই রোজার মাসের একটি সম্পূর্ণ তালিকা তৈরি করে নিতে পারেন। এতে কটে ভুল হওয়ার সম্ভাবনাও কমে যায় অনেকাংশ। শুকনো খাবার যেমন :- মুড়ি, চিড়া, খেজুর, বাদাম,বেসন এ জাতীয় খাবার অল্প অল্প করে রোজার মাসে কেন্দ্র করে তুলে রাখতে পারেন। যাদের পরিবার বড় তাদের ক্ষেত্রে মাসের খাবারের সঙ্গে একটু বাড়িয়ে নিতে পারেন সব।এতে রোজার শুরুর দিকের চাপ কমে আসবে অনেকখানি। খাবার- দাবারের পাশাপাশি আনুষাঙ্গিক জিনিস যেমন:- জায়নামাজ, তসবিহ, টুপি, ইত্যাদি সব কিছু পরিস্কার করে নিতে পারেন। এ সময় বাসায় অনেক সময় বাড়তি মেহমান আসেন। সে ক্ষেত্রে চাওয়া মাত্রই হাতের কাছে জিনিসগুলো খুব সহজেই পাওয়া যায়। এছাড়া রোজার সময় নতুন করে একটু আলাদাভাবে প্রস্তুতির ক্ষেত্রেও খুব ভালো কাজ করে বিষয়টি।