[gtranslate]

যুক্তরাজ্য প্রবাসী শিক্ষানুরাগী শায়েখুজ্জামান স্বদেশে ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত


প্রাচেস্টা নিউজ প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২৩, ৮:৫৪ পূর্বাহ্ণ / ২৫
যুক্তরাজ্য প্রবাসী শিক্ষানুরাগী শায়েখুজ্জামান স্বদেশে ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত

হুমায়ূন কবীর ফরীদি, বিশেষ প্রতিনিধিঃ

যুক্তরাজ্য প্রবাসী কমিউনিটি নেতা বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী মোঃ শায়েখুজ্জামান (শায়েখ) ও উনার সহধর্মিণী লুৎফা বেগম এর স্বদেশ আগমন উপলক্ষে মোকামপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে যাত্রা পথে, তোরণ নির্মাণ এর মাধ্যমে অভর্থনা জানানোর পাশা-পাশি তাকে ফুলেল শুভেচছায় বরন করেছেন বিদ্যালয় পরিবার। সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়ন এর অন্তর্ভুক্ত বালিকান্দী মোকামপাড়া গ্রাম নিবাসী যুক্তরাজ্য শাখা সুনামগঞ্জ ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন এর কার্যকরী কমিটির সদস্য, বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী মোকামপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভূমিদাতা ও প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি , কলকলিয়া ইউনিয়ন ডেভেলপমেন্ট এসোসিয়েশন এর সহ-সভাপতি মোঃ শায়েখুজ্জামান (শায়েখ) ও উনার সহধর্মিণী শিক্ষানুরাগী মোছাঃ লুৎফা বেগম মা-মাটি, শিকড়ের টানে গতকাল ১৯ শে ফেব্রুয়ারী রোজ রবিবার নিজগ্রাম বালিকান্দী মোকামপাড়ায় পৌছার পূর্ব মুহুর্তে মোকামপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটি, শিক্ষক ও শিক্ষার্থী বৃন্দ তাঁদেরকে ফুল দিয়ে বরন করেন। শিক্ষানুরাগী মোঃ শায়েখুজ্জামান (শায়েখ) ও উনার সহধর্মিণী লুৎফা বেগমকে ফুলেল শুভেচছায় বরনকালে উপস্থিত ছিলেন, বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী, মোঃ আখতারুজ্জামান, মোকামপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় এর ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ শফিকুজ্জামান, শিক্ষানুরাগী মোঃ শায়েস্তা মিয়া, মোঃ ছমির আলী, আব্দুল কাদির, শিক্ষানুরাগী মোঃ জাহেদুজ্জামান সুয়েব, সুহেল মিয়া, মোঃ আব্দুর রশীদ, মোকামপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মোঃ জাফর ইকবাল, ফাতেমা জাহান, মোঃ সাব্বির আহমদ, মোঃ সোহাগ জামান, মমতা রানী ও শিক্ষার্থী বৃন্দ। বিদ্যালয়ে কিছু সময় কাটিয়ে দুপুরে গ্রামের বাড়ীর নিজ বাসভবনে পৌঁছেন শিক্ষানুরাগী মোঃ শায়েখুজ্জামান (শায়েখ) ও উনার সহধর্মিণী লুৎফা বেগম। উনাদের স্বদেশ আগমনে শিক্ষাঙ্গন, পরিবার ও আত্বীয়- স্বজন এর মধ্যে আনন্দ -উল্লাস প্রতিধ্বনিত হচ্ছে। এদিকে এই সেলিব্রিটি দম্পতির নিজগ্রামে ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আগমন উপলক্ষে তাঁদেরকে অভ্যর্থনা জানিয়ে মোকামপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে কলকলিয়া পয়েন্ট থেকে বিদ্যালয় এর সামন পর্যন্ত প্রায় দেড় কিলোমিটার যাত্রা পথে বেশ কয়েকটি তোরণ নির্মাণ করা হয়।