[gtranslate]

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ইউপি সচিবকে নিয়ে চেয়ারম্যানের মাদক সেবনের ভিডিও ভাইরাল, ইউপি চেয়ারম্যান ও সচিবকে শোকজ


প্রাচেস্টা নিউজ প্রকাশের সময় : জানুয়ারি ২৯, ২০২২, ১০:২২ পূর্বাহ্ণ / ৮৬
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ইউপি সচিবকে নিয়ে চেয়ারম্যানের মাদক সেবনের ভিডিও ভাইরাল, ইউপি চেয়ারম্যান ও সচিবকে শোকজ
বড়িকান্দি ইউ/পি চেয়ারম্যান  লুৎফর রহমান (লাল মিয়া) এর ছবি।
ফারজানা আক্তার (ফাইজা), ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে,
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে এক ইউনিয়ন পরিষদ সচিবকে সাথে ইউপি চেয়ারম্যানের মাদক সেবনের ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে। এ ঘটনায় বড়িকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি লুৎফর রহমান (লাল মিয়া) ও সলিমগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের সচিবকে জগলুল আহমেদকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। এতে তিন কর্ম দিবসের মধ্যে নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে।
জানা যায়, গত ২৮ নভেম্বর নবীনগর উপজেলার ১৩ ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। এ নির্বাচনে উপজেলার বড়িকান্দি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী লুৎফর রহমান (লাল মিয়া) বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। গত ১১ জানুয়ারি তিনি চেয়ারম্যান হিসেবে শপথ নেওয়ার পর বড়িকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। এরপর থেকে প্রায় সময়ই মাদকাসক্ত অবস্থায় দেখা যায় লুৎফর রহমানকে। তিনি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি পদেও রয়েছেন। সম্প্রতি পার্শ্ববর্তী সলিমগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ সচিব জগলুল আহমেদের সাথে চেয়ারম্যান লুৎফর রহমানের মাদক সেবনের ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়। ভিডিওতে দেখা যায়, সচিব জগলুল আহমেদ বোতল থেকে মাদক ঢালছেন। এরপর চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান ও সচিব সেই মাদক সেবন করছেন। তাদের মাদক সেবনের ভিডিও উপজেলা প্রশাসনের হাতে পৌঁছে। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান ও সলিমগঞ্জ ইউপির সচিব জগলুল আহমেদকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেন।
বড়িকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান (লাল মিয়া) মোবাইলে কল দিলে তিনি রিসিভ করেননি।
সলিমগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের সচিব জগলুল আহমেদ বলেন, আমাদের সাথের কেউ ভিডিও করেছে। এমপি সাহেবের কাছে সেই ভিডিও পাঠিয়েছে। আমরা নোটিশের জবাব দেব।
এদিকে, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একরামুল সিদ্দিক জানান, মাদক সেবন ঘটনায় তাদের কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়ে তিন কর্মদিবসের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়েছে। তবে তারা এখনো কোন জবাব দেননি।
সূত্র জানায়, গত ২৪ জানুয়ারি কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হলেও বিষয়টি গোপন রাখা হয়।
নবীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কর্তৃক কারণ দর্শানোর নোটিশ।
ফারজানা আক্তার (ফাইজা)
ব্রাহ্মণবাড়িয়া
তারিখঃ ২৯.০১.২০২২ইং