[gtranslate]

বংশীকুন্ডা দঃ ইউনিয়ন যুবলীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে সভাপতি পদে আলোচনার শীর্ষে জুনেল মিয়া।


প্রাচেস্টা নিউজ প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২৩, ২:০৪ অপরাহ্ণ / ২১
বংশীকুন্ডা দঃ ইউনিয়ন যুবলীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে সভাপতি পদে আলোচনার শীর্ষে জুনেল মিয়া।

এ,এম স্বপন জাহান 

দীর্ঘ এক যুগের বেশি সময় পর আসছে বংশীকুন্ডা দঃ ইউনিয়ন যুবলীগের সম্মেলন। আগামী ৬ মার্চ সম্মেলনকে ঘিরে পদপ্রত্যাশী নেতারা ইতোমধ্যে জেলা ও উপজেলাতে লবিং তদবির শুরু করেছেন। ইউনিয়ন ও সোস্যাল মিডিয়ায় ব্যপক প্রচারনা চালাচ্ছেন এমন কি সাঁটিয়েছেন শুভেচ্ছা পোস্টারও।  আসন্ন ইউনিয়ন যুবলীগের সম্মেলন ঘিরে শীর্ষ দুই পদে আসতে তৎপর যুবলীগের বর্তমান ও ছাত্রলীগের সাবেক নেতারা। স্থানীয় ও উপজেলা নেতাদের কাছে নিজেদের আত্ম সামাজিক পরিচয় তুলে ধরে নিজেদেরকে যুবলীগের যোগ্য প্রার্থী হিসাবে জাহির করতে জোরে সোরে প্রচার-প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছে।খবর নিয়ে জানা যায়, শীর্ষ দুই পদে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী হয়েছেন ৭ জন।সভাপতি পদে ৪ জন ও সাধারণ সম্পাদক পদে ৩ জন। বংশীকুন্ডা দঃ ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি পদে মনেয়ন জমা দিয়েছে বীর মমুক্তিযুদ্ধা ও আওয়ামী পরিবারের সন্তান ও সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সাবেক ছাত্রলীগ নেতা জুনেল মিয়া।খোঁজ নিয়ে জানাগেছে জনপ্রিয়তায় শীর্ষে রয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক ও বর্তমান যুবলীগের সভাপতি পদপ্রত্যাশী এমডি জুয়েল মিয়া। বংশীকুন্ডা দঃ ইউনিয়নের তৃণমুলের তুখোড় সাবেক এই ছাত্রনেতা সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন জুড়ে তৃণমূল নেতা-কর্মীদের প্রাণভোমরা রূপান্তরিত হয়েছে। তিনি দীর্ঘদিন ধরে তৃণমুল পর্যায়ের দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে সক্রিয় রাজনীতি করে আসছেন। এ বিষয়ে মাঠ পর্যায়ের যুবলীগের নেতা-কর্মীরা সাংবাদিককে জানান, আমরা এবার জুনেল মিয়া কে বংশীকুন্ডা দঃ ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি হিসাবে দেখতে চাই। এ জন্য তার প্রতি সব সময় আমাদের দোয়া ও আশির্বাদ রয়েছে। তিনি যুবলীগের সভাপতি নির্বাচিত হলে নেতা-কর্মীদের মাঝে যে টানাপোড়েন আছে তা শেষ হয়ে যাবে। বংশীকুন্ডা দঃ ইউনিয়ন যুবলীগ চাঙ্গা হবে। সাধারণ যুবলীগ কর্মীরা প্রাণ খুলে কথা বলতে পারবে সভাপতির সাথে। সেই সাথে বিভিন্ন ওয়ার্ড ও অত্র ইউনিয়নের অবহেলিত নেতাকর্মীরা মনোবল ফিরে পাবে। আসন্ন সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে শেখ হাসিনার হাতকে আরো শক্তিশালী করতে তৃণমুল যুবলীগের নেতাকর্মীদের মাঠে ফেরাতে জুনেল মিয়ার বিকল্প নেই।তার আরও বলেন,আমরা সাধারণ কর্মীরা উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মোস্তাক আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক বিদ্যুৎ ক্রান্তি সরকার এর প্রতি আকুল আবেদন করছি। বংশীকুন্ডা দঃ ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি হওয়ার একমাত্র দাবিদার হলেন জুনেল মিয়া । সে ছাড়া বিকল্প কোন প্রার্থী নেই। তিনি একমাত্র যৌগ্য প্রার্থী।তাকে যুবলীগের সভাপতি পদে মনোনীত করে বংশীকুন্ডা দঃ ইউনিয়ন যুবলীগকে শক্তিশালী করার উদাত্ত আহ্বান জানাই। নাম না প্রকাশ করার শর্তে এক যুবলীগ নেতা জানান, যেহেতু জুনেল মিয়া দীর্ঘদিন থেকে তৃণমূলে কাজ করে আসছেন। তাছাড়া মাঠ পর্যায়ে যুবলীগের নেতাকর্মীদের নিয়ে মিটিং মিছিলে সরব উপস্থিতি দেখিয়েছে, দলের দূর-দিনে দলের সাথে ছিলো এবং সে ত্যাগী নেতা। তাই যুবলীগের সভাপতি হওয়ার দৌরাত্ম্যে এগিয়ে আছেন জুনেল মিয়া। বংশীকুন্ডা দঃ ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি হিসেবে আগ্রহী এমডি জুনেল মিয়া বলেন, দীর্ঘদিন ধরে সম্মেলন না হওয়ায় কর্মীরা ঝিমিয়ে পড়েছেন। শুণ্যতায় ভুগছেন। তাদের জায়গা প্রয়োজন। আমি সভাপতি হিসেবে আগ্রহ প্রকাশ করেছি। যদি দায়িত্ব পাই তাহলে সঠিক ভাবে দায়িত্ব পালন করবো, তবে সংগঠনকে গতিশীল করতে যে পদেই দেয়া হোক না কেন আমি আদর্শচ্যুত হবো না।  উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মোস্তাক আহমেদ বলেন, ত্রিবার্ষিক সম্মেলন ঘিরে বংশীকুন্ডা ইউনিয়ন যুবলীগে ব্যাপক প্রাণচাঞ্চল্য দেখা যাচ্ছে। আমাদের ধারণা বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী এই সম্মেলনে যোগ দেওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিয়েছেন।তিনি আরও বলেন আগামী ৬ তারিখের সম্মেলনে শীর্ষ দুই পদের জন্য এ পর্যন্ত ৭ জন পদপ্রত্যাশী মনোনয়ন জমা দিয়েছে আরও বাড়তে পারে।তবে এদের মধ্য থেকেই সৎ,আদর্শ ও নিষ্ঠাবান, ও আওয়ামী পরিবারের দলের নিবেদিত কর্মীদেরকেই স্থান দেওয়া হবে।আসন্ন ইউনিয়ন যুবলীগের সম্মেলন কে কেন্দ্র করে ব্যপক প্রস্তুতি নিয়েছে উপজেলা যুবলীগ ও বংশীকুন্ডা দঃ ইউনিয়ন যুবলীগ। আগামী ৬ মার্চ অনুষ্ঠিত যুবলীগের সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন,সুনামগঞ্জ ১ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ধর্মপাশা উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা যুবলীগের সদস্য মোজাম্মেল হোসেন রুকন, জেলা যুবলীগ সদস্য আলী হোসেন পলাশ, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মোস্তাক আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক বিদ্যুৎ ক্রান্তি সরকার সহ অনেকেই।