[gtranslate]

পঞ্চম ধাপের ইউপি নির্বাচন: এবার বিনা ভোটে নির্বাচিত ৪২ জন


প্রাচেস্টা নিউজ প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ২০, ২০২১, ৭:৩৮ পূর্বাহ্ণ / ৩৮৪
পঞ্চম ধাপের ইউপি নির্বাচন: এবার বিনা ভোটে নির্বাচিত ৪২ জন

 

অনলাইন ডেস্ক:

ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে বিনা ভোটে জনপ্রতিনিধি হওয়ার ঘটনা আরো বাড়ল। গতকাল সোমবার ছিল পঞ্চম ধাপের ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন। এদিন অনেকে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। এ ছাড়া বেশ কয়েকটি ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে একজন করে প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেন। এই ধাপে বিনা ভোটের চেয়ারম্যান পেতে যাচ্ছে কমপক্ষে ৪২টি ইউপি। কালের কণ্ঠের স্থানীয় নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য মিলেছে। আগামী ৫ জানুয়ারি পঞ্চম ধাপের নির্বাচনে ভোট হবে।

 

প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্য অনুযায়ী, ময়মনসিংহের ১২, সিরাজগঞ্জের ১১, যশোরের এক, ঝিনাইদহের তিন, জামালপুরের এক, ফেনীর চার, চট্টগ্রামের পাঁচ, জয়পুরহাটের এক, গোপালগঞ্জের তিন ও ঢাকার সাভারের একটি ইউপি বিনা ভোটে চেয়ারম্যান পেতে যাচ্ছে। এ নিয়ে পাঁচ ধাপে মোট ৩৩৫ ইউপি বিনা ভোটে চেয়ারম্যান পেল।

 

এর আগে চতুর্থ ধাপের ভোটের আগে একক প্রার্থী হিসেবে ৪০টি ইউপি বিনা ভোটের চেয়ারম্যান পেয়ে গেছে। এর মধ্যে নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ১০ ইউপির মধ্যে ছয়টিতেই আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বিনা ভোটের চেয়ারম্যান হয়েছেন। চট্টগ্রাম জেলার ছয়টি ইউপি এ ধরনের চেয়ারম্যান পেয়েছে। চতুর্থ ধাপের নির্বাচন হবে আগামী ২৬ ডিসেম্বর।

তৃতীয় ধাপের নির্বাচনেও বিনা ভোটের চেয়ারম্যান পেয়েছে ১০০ ইউপি। এ ছাড়া প্রথম ধাপে ৭২ জন এবং দ্বিতীয় ধাপে ৮১ জন একক প্রার্থী হিসেবে ভোট ছাড়াই চেয়ারম্যান হয়েছেন।

 

সব মিলিয়ে স্থানীয় সরকার নির্বাচনের ইতিহাসে ইউপি নির্বাচনের প্রথম তিন ধাপেই চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতার নতুন রেকর্ড হয়ে গেছে।

 

নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুসারে, এর আগে ২০১৬ সালের ইউপি নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান হন ২১৭ জন। ২০১১ সালে কারো বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার তথ্য নির্বাচন কমিশনের কাছে নেই। ১৯৯৭ সালের নির্বাচনে ৩৭ জন চেয়ারম্যান বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন। ১৯৯২ সালে চারটি ইউপিতে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতার ঘটনা ঘটে। ১৯৮৮ সালে চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন ১০০ জন।