[gtranslate]

নারায়ণগঞ্জে সাত তলা থেকে লাফিয়ে পড়ে কাউন্সিলরের স্ত্রীর আত্মহত্যা


প্রাচেস্টা নিউজ প্রকাশের সময় : মার্চ ৫, ২০২৩, ৬:০৮ অপরাহ্ণ / ২২
নারায়ণগঞ্জে সাত তলা থেকে লাফিয়ে পড়ে কাউন্সিলরের স্ত্রীর আত্মহত্যা

বিশেষ প্রতিনিধি: ফাহমিদা এনি 

নাসিক ৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র ২ শাহ্জালাল বাদলের প্রথম স্ত্রী সাদিয়া ইসলাম নিঝু ( ৩২) চাষাঢ়া বালুর মাঠ সংলগ্ন ৭ তলা ভবনের ছাদ থেকে লাফিয়ে পড়ে আত্মহত্যা করে। জানা যায়, ৫ই মার্চ দুপুরে মেলা ফুড নামক ৭ তলা ভবনের ছাদ থেকে লাফিয়ে রেললাইন সংলগ্ন সড়ক এর উপরে পড়ে নিঝু। পরে তাকে স্থানীয় হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এই বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনিসুর রহমান মোল্লা জানান নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে (ভিক্টোরিয়া) এক নারীর মরদেহ রয়েছে বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়। হাসপাতালে পুলিশ সদস্য গেছে ময়নাতদন্ত শেষে বিস্তারিত জানা যাবে। এখন পর্যন্ত পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ জানানো হয়নি। পারিবারিক সূত্রে জানা যায় সাদিয়া ইসলাম নিঝু কাউন্সিলের বাদলের প্রথম স্ত্রী। তাদের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। স্ত্রী হিসেবে অধিকারও ভরণপোষণের দাবিতে গত ৮ই ফেব্রুয়ারি নিঝু এক সংবাদ সম্মেলন করেছিলেন।
অনেকেই বলছেন স্বামীর অধিকার আদায়ে ব্যর্থ হয়ে ১০ বছর অপেক্ষার পর আত্মহত্যা করে লাঞ্ছনা জীবন শেষ করলেন নিঝু। এদিকে নারায়ণগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা পুলিশ ডিবি প্যানেল মেয়র বাদলকে আটক করে ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে গেছে। পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফার রাসেল জানান জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে আনা হয়েছে। নিহত সাদিয়া ইসলাম নিঝুম চাষাড়া এলাকায় আলী হায়দার শামীমের মেয়ে। অপরদিকে কাউন্সিলর বাদল সিদ্ধিরগঞ্জের নয়আটি মুক্তিনগর এলাকার নুর সালামের ছেলে। তিনি বহুল আলোচিত সাত খুন মামলায় ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত প্রধান আসামি নূর হোসেনের ভাতিজা। জানা যায় ২০০৭ সালে বাদল নিঝুর বিয়ে হয়। বাদল সন্তান দানে অক্ষম হাওয়াই নিঝু আইভিএফ পদ্ধতির মাধ্যমে এক ছেলে সন্তানের মা হন। ২০১১ সালে কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়ার পর বাদল বিয়ের নেশায় পড়ে একে একে চারটি বিয়ে করে। এর প্রতিবাদ করায় মারধর করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়া হয় তাকে এরপর থেকে সন্তানকে নিয়ে মায়ের সঙ্গেই থাকতেন নিঝু।