[gtranslate]

তেঁতুলিয়া উপজেলার বুড়াবুড়ি ইউনিয়ন আপন দুই ভাইসহ ১০ জন প্রার্থী


প্রাচেস্টা নিউজ প্রকাশের সময় : অক্টোবর ১৮, ২০২১, ৬:৩৩ পূর্বাহ্ণ / ১৫১
তেঁতুলিয়া উপজেলার বুড়াবুড়ি ইউনিয়ন আপন দুই ভাইসহ ১০ জন প্রার্থী

আপন দুই ভাই

নিউজ ডেস্ক:

আপন দুই ভাইয়ের প্রতিদ্বন্দ্বিতাকে ঘিরে জমে উঠেছে পঞ্চগড় জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলার বুড়াবুড়ি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। বড়ভাই ওই ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মো. কামরুজ্জামান কামু এবারে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন। তবে ছোটভাই মো. শেখ কামাল আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী। দুই ভাই-ই নির্বাচনে জয়লাভের বিষয়ে আশাবাদী। আপন দুই ভাইয়ের ভোটযুদ্ধ নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে চলছে ব্যাপক আলোচনা। ১১ নভেম্বর তেঁতুলিয়া উপজেলার সাতটি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।

এলাকাবাসী ও দুই প্রার্থীর স্বজনেরা জানান, দুই ভাইয়ের মধ্যে পারিবারিক বিবাদ চলছে। ফলে কেউই কাউকে ছাড় দিতে রাজি না। একই পরিবার থেকে দুই ভাইয়ের লড়াইয়ের কারণে বিপাকে পড়েছেন স্বজন, শুভাকাঙ্ক্ষী ও প্রতিবেশীরা।

চেয়ারম্যানপ্রার্থী কামরুজ্জামান কামু বলেন, গত ২০১১ সাল থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত বুড়াবুড়ি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলাম। গতবারও চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলাম। তবে মাত্র ৬৩ ভোটে পরাজিত হই। আমি এলাকার মানুষের সুখে দুঃখে পাশে ছিলাম। দীর্ঘদিন ধরে মাঠে কাজ করে যাচ্ছি। এলাকাবাসীর দাবির মুখে এবারও নির্বাচনে অংশ নিয়েছি। ছোটভাই প্রার্থী হবেন বিষয়টি তিনি পরিবারের কারও সঙ্গে আগে আলোচনা করেননি বলে দাবি করেন তিনি।

তবে ছোটভাই ও আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. শেখ কামাল বলেন, দলীয়ভাবে আমাকে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। পারিবারিক কোন্দলের কারণে বড়ভাই প্রার্থী হতে পারেন বলে জানান তিনি।

তিনি দাবি করেন, দলীয় প্রতীক পাবো এবং আমি নির্বাচনে প্রার্থী হবো বিষয়টি আমি কর্মী-সমর্থক ও পরিবারের সদস্যদের আগেই জানিয়েছিলাম। কিন্তু তারপরও বড়ভাই প্রার্থী হয়েছেন।

তেঁতুলিয়া উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আলী হোসেন জানান, বুড়াবুড়ি ইউনিয়নে দুই ভাই ছাড়াও আট জন প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। মোট ভোটার ৯ হাজার ১২৬ জন।