[gtranslate]

তারাকান্দায় দিনের দুপুরে ডাকাতি এখনো কেউ গ্রেফতার হয়নি


প্রাচেস্টা নিউজ প্রকাশের সময় : আগস্ট ৭, ২০২২, ১০:৪৩ পূর্বাহ্ণ / ৪৯
তারাকান্দায় দিনের দুপুরে ডাকাতি এখনো কেউ গ্রেফতার হয়নি

 

গোলাম কিবরিয়া পলাশ, স্টাফ রিপোর্টারঃ

মধ্যযুগীয় কায়দায় একটি পরিবারকে নিমেষেই ধংশ করে দিলো দিনের দুপুরে ভাংচুর ও লুটপাট করে। এ ঘটনাটি ঘটে ময়মনসিংহের তারাকান্দা থানাধীন বালিখাঁ ইউনিয়নে।

জানা গেছে, গত বুধবার (০৩ আগস্ট ২০২২) তারিখ দিনের বেলায় কামাল হোসেন এর বাড়িতে একদল সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে বাড়ি/ঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে। এ হামলায় প্রায় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ১০,০০০০০/- (দশ লক্ষ টাকা)।

ফারুক গং সহ সাত আটজন অস্ত্রসজ্জিত অবস্থায় দা, বটি, লোহার রড, রাম দা, চাপাতি ও বল্লমসহ লাঠিসোঁটা নিয়ে অনাধিকারে প্রবেশ করে কামাল হোসেন এর বাড়িতে। পরে বাড়ি/ঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে। নগদ টাকা, সুনার অলংকার, খাট, সুকেস, আলমিরা, ডেক ডেক্সিসহ গবাদি পশু ছাগল গরুসহ সব নিয়ে সর্ব শান্ত করে দিয়েছে কামাল হোসেনকে।

এ বিষয়ে তারাকান্দা থানায় খবর দিলে তারকান্দা থানার ওসি আবুল খায়ের সোহেল সহ পুলিশ প্রশাসন ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে কামাল হোসেনকে মামলা করার পরামর্শসহ সার্বিক সহযোগিতা করার আশ্বাস প্রকাশ করেন। পরে রবিবার ০৭ আগস্ট ২০২২ তারিখ মামলা রেকর্ড করে তারাকান্দা থানার ওসি। যার স্মারক নং- ২৩৮০(৩)/১

এ দিকে বালিখাঁ বাজারসহ এ গ্রামের আশপাশের লোকজন বলছে আবুল কালাম এর আপন ভাই ফারুক। ফারুক এর চালচলন মোটেও ভালো নয়। তাঁর অপকর্মের বিষয়ে বলতে গেলে বিভিন্ন সময় লোকদের মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করে থাকে। সে এলাকায় বলে বেড়ায় সে আইজির লোক, ডিআইজির লোক, প্রশাসন তার পকেটে।

খুঁজ নিয়ে জানা যায় এলাকার বহু লোককে জিম্মি করে চাঁদা আদায়, বিভিন্ন জনের জায়গা জমি দখলসহ দিনে দুপুরে তাঁর সাঙ্গু পাঙ্গুদের নিয়ে দেশীয় অস্ত্রসজ্জিত অবস্থায় ডাকাতি করে থাকে। স্থানীয় বালিখাঁ ইউনিয়ন পরিষদ বাজারে তার বিষয়ে জানতে চাইলে লোকজন বলছে সে খারাপ প্রকৃতির লোক নিজের শরীর নিজেই কাটে, আর নিজের দাঁত নিজেই ভেঙ্গে তারপর তুলে নিয়ে তাঁর বিপক্ষের লোকজনের নামে মিথ্যা মামলা করে হয়রানি করে থাকে।

এর বিরুদ্ধে কোন কথা বা সাক্ষী দিলে ঢাকা আইজি অফিসের ভয় দেখায়, ডিআইজি অফিসের ভয় দেখায়, বিভিন্ন মামলা করে মানুষজনকে অতিষ্ঠ করে তুলছে। এরকম খারাপ লোকের পক্ষে আমরা কেউ নেই। ফারুক ও তার সাঙ্গু পাঙ্গুদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবী করেন স্থানীয় এলাকাবাসী।