[gtranslate]

ছাতকে শাখাইতি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ


প্রাচেস্টা নিউজ প্রকাশের সময় : মার্চ ২৫, ২০২৩, ৭:১২ অপরাহ্ণ / ২২
ছাতকে শাখাইতি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টারঃ

ছাতকে শাখাইতি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার চরমহল্লা ইউনিয়নের শাখাইতি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফখরুল ইসলামের বিরুদ্ধে জাতীয় শিশু দিবস পালন না করায় এবং দায়িত্ব অবহেলাসহ নানা অভিযোগ থাকায় বিদ্যালয়ের অভিভাবক গণ ক্ষুব্ধ রয়েছেন। জানা যায়, সরকারি নীতিমালা অনুযায়ী প্রতিটি বিদ্যালয়ে জাতীয় শিশু দিবস ও বঙ্গবন্ধুর ১০৩ তম জন্ম দিনে নানা কর্মসূচী থাকলেও এ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফখরুল ইসলাম দিবসটি পালনে আন্তরিক না থাকায় কোন কর্মসূচী অনুষ্ঠিত হয়নি। ফলে অভিভাবক গণ ক্ষুব্ধ হয়ে প্রধান শিক্ষকের অপসারণ দাবি করেন। অভিযোগ রয়েছে ২০২২ সালেও স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস, জাতীয় শোক দিবসে ও বিদ্যালয়ে কোন কর্মসূচী পালন না করায় অভিভাবক গণ উর্দ্বতন কর্তৃপক্ষের প্রতি লিখিত অভিযোগ দিয়ে ও কোন প্রতিকার পাননি। গত ২০ মার্চ বিদ্যালয়ের নতুন ভবন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্থানীয় সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকলেও প্রধান শিক্ষক ফখরুল ইসলামকে উপস্থিত না পেয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন। এছাড়া তিনি বিদ্যালয়ে নিয়মিত অনুপস্থিতি সহকর্মীদের সাথে দুর্ব্যবহার, স্বেচ্ছাচারিতা, বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভায় রেজুলেশন করে আসবাবপত্র কেনার কথা থাকলেও ক্রয় না করে বিল ভাউচার না দেখিয়ে টাকা আত্মাসাতেরও অভিযোগ রয়েছে। ফলে বিদ্যালয়ে পাঠ দানের মান নিম্নগামী হওয়ায় প্রতিনিয়ত শিক্ষার্থীরা ঝরে পড়ে শিক্ষার মানোন্নয়ন নিয়ে শঙ্কায় আছেন অভিভাবক গণ। শ্লীপের টাকা আত্মাসাৎ, বিভিন্ন জাতীয় দিবস যথাযথ ভাবে পালন না করা ও দ্বায়িত্ব অবহেলাসহ নানা অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগে বৃহস্পতিবার সকালে এলাকাবাসীর পক্ষে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সহ-সভাপতি জসিম তালুকদার বাদী হয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে। বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সিরাজ উদ্দিন জানান, প্রধান শিক্ষক ফখরুল ইসলাম প্রতিনিয়ত তুচ্ছ বিষয় নিয়ে খারাপ আচরণ করে থাকেন। উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ভারপ্রাপ্ত মাছুম মিঞা জানান, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মহোদয়ের পরামর্শ ক্রমে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে। অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক ফখরুল ইসলাম জানান, আমি জাতীয় শিশু দিবসে ছুটিতে ছিলাম। বিদ্যালয়ে যথাসময়ে উপস্থিত হই আর অন্য বিষয়ে ডকুমেন্টারি কথা বলতে হবে।