[gtranslate]

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে মুক্তিযোদ্ধার উপর সন্ত্রাসী হামলা- বিভিন্ন মহলের নিন্দা


প্রাচেস্টা নিউজ প্রকাশের সময় : এপ্রিল ২৩, ২০২৩, ১০:০০ পূর্বাহ্ণ / ২৭
কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে মুক্তিযোদ্ধার উপর সন্ত্রাসী হামলা- বিভিন্ন মহলের নিন্দা

নাঙ্গলকোট (কুমিল্লা) প্রতিনিধি

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে মুক্তিযুদ্ধার উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটেছে। পবিত্র ঈদের ফিতরের দিন এই হামলার ঘটনা ঘটেছে।এলাকা সুত্রে জানা গেছে, শনিবার (২২ এপ্রিল) ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় করার জন্য ঈদগাহে যাওয়ার পথে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেকের উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে। এতে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেকের হাত, মূখ ও চোখে গুরতর জখম হয়।পরে পরিবার সদস্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে নিয়ে যায়। পরে অবস্থার অবনতি হলে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (কুমেক) নিয়ে ভর্তি করা হয়।ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার দোলখাঁড় ইউপির দক্ষিন কান্দাল মাষ্টার পাড়া কালাম মেম্বার বাড়িতে।সরজমিনে গিয়ে জানা যায়, একই বাড়ির মোহাম্মদ ইসলামের ছেলে বাচ্চু মিয়া (৪০) সাথে দীর্ঘদিন থেকে জায়গাজমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। সন্ত্রাসী বাচ্চু মিয়ার ভয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তার পরিবার ঘরবন্ধী জীবন-যাপন করে আসছে। শনিবার সকালে ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায়ের জন্য ঈদগাহে যাওয়ার পথে সন্ত্রাসী বাচ্চু মিয়া মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেকের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এতে আব্দুল মালেক গুরতর আহত হলে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে নিয়ে যায়। ওখান থেকে পরে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়।এব্যাপারে মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক বলেন, ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় করার জন্য মসজিদে রওনা হয়েছি। ঠিক তখনি পিছন থেকে এই সন্ত্রাসী হামলা চালায়, যেমনটা যুদ্ধের সময় করেছিলো পাকিস্তানি বাহিনী। তিনি সরকার এবং আদালতের কাছে এর সঠিক বিচার দাবি করেন।আহত আব্দুল মালেকের স্ত্রী রাহেলা বেগম বলেন, ঘরে রান্নার কাজ করছিলাম, হঠাৎ উচ্চ শব্দ শুনে দৌড়ে গিয়ে দেখি শরীর থেকে রক্ত ঝড়ছে। পরে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ কে জানিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাই।হামলার বিষয়ে জানতে অভিযুক্ত বাচ্চুর সাথে বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তা সম্ভব হয় নি।প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মুক্তিযুদ্ধা আব্দুল মালেক নামাজ পড়তে যাওয়ার পথে এই সন্ত্রাসী পিছন থেকে এসে অতর্কিত কিল,ঘোষি এবং দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। পরে উপস্থিত সবাই আব্দুল মালেক কে সন্ত্রাসীর হাত থেকে উদ্ধার করে।স্থানীয় ইউপি সদস্য আবুল কালাম বলেন, বিষয়টি জানার সাথে ঘটনাস্থলে গিয়েছি এবং সামাজিকভাবে সমাধান করার চেষ্টা করেছি কিন্তু অভিযুক্ত বাচ্চু সমাজ কে অবজ্ঞা করে পালিয়ে যায়। তাই মুক্তিযোদ্ধার পরিবার কে আইনি পদক্ষেপ নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছি।নাঙ্গলকোট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফারুক হোসেন বলেন, আপনার কাছ থেকে শুনেছি। থানায় অভিযোগ করা হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রায়হান মেহবুব বলেন, মুক্তিযোদ্ধার উপর সন্ত্রাসী হামলা এটি ন্যাক্কারজনক, অভিযোগ পাইলে ব্যাবস্থা নেওয়া হবে। হামলাকারীদের আইনের আওতায় এনে সঠিক বিচার নিশ্চিতের দাবী জানিয়ে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন৷ আলো মিডিয়া গ্রুপ লিঃ এর প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক সাংবাদিক আহমেদ হোসাইন ছানু ও প্রচেষ্টা স্বেচ্ছাসেবক ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি মোঃ আঃ মান্নান সহ সংশ্লিষ্ট সাংবাদিক সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও অরাজনীতি সেচ্ছাসেবী সংগঠনের ব্যক্তিরা