[gtranslate]

এক ইউনিয়নের চেয়ারম্যানসহ সবাই পরিবর্তন


প্রাচেস্টা নিউজ প্রকাশের সময় : জানুয়ারি ১, ২০২২, ১০:২৬ পূর্বাহ্ণ / ১২৯২
এক ইউনিয়নের চেয়ারম্যানসহ সবাই পরিবর্তন

 

রাজশাহী জেলা প্রতিনিধি:

এমনটি প্রায়ই ঘটে না। রাজশাহীর একটি ইউনিয়নের চলতি পরিষদের সবাই এবারের নির্বাচনে পরাজিত হয়েছেন। জনগণ ব্যালটের মাধ্যমে তাদের কঠিন বার্তা দিয়েছেন। চেয়ারম্যান থেকে সাধারণ সদস্য, সংরক্ষিত নারী সদস্য কেউ-ই এবারের নির্বাচনে জিততে পারেননি রাজশাহীর বাঘা উপজেলার বাউসা ইউনিয়নে। এখন পর্যন্ত সম্পন্ন হওয়া রাজশাহী বিভাগের কোনো ইউনিয়নেই এমন রায় দানের ব্যতিক্রম ঘটনা ঘটেনি।

বাউসার ভোটাররা বলছেন, জনগণের ভোট নিয়ে যারা জনগণের ভালোমন্দের দিকে নজর না দেবেন, তাদের জন্য এটি বড় সতর্কবার্তা। এবার যারা নির্বাচিত হয়েছেন, তারাও এর মাধ্যমে সতর্কবার্তা পাবেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ২৬ ডিসেম্বর রাজশাহীর বিভিন্ন উপজেলার ১৯ ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে বাঘা উপজেলার বাউসা ইউনিয়নেও নির্বাচন হয়। বেসরকারিভাবে ঘোষিত ফলে দেখা গেছে, ইউনিয়নটির চেয়ারম্যান থেকে সাধারণ সদস্য ও সংরক্ষিত সদস্য সবাই পরাজিত হয়েছেন। চেয়ারম্যানসহ ইউনিয়ন পরিষদের ১৩ জনই বিপুল ভোটে হেরেছেন। ফলে পরিষদে এসেছেন নতুন ১৩ জন।

জানা গেছে, বাউসার বর্তমান চেয়ারম্যান ও সদ্য সমাপ্ত নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী শফিকুর রহমান শফিক ২০১৬ সালের নির্বাচনে বিপুল ভোটে জিতেছিলেন। এবারের ভোটে জেতার জন্য দলের বিদ্রোহী প্রার্থী নুর মোহাম্মদ তুফানের বাড়িতে কয়েক দফা হামলা চালান শফিক। তুফানকে মামলা দিয়ে জেলে ভরেন। কিন্তু তাতেও রক্ষা হয়নি।

শফিক গত ২৬ ডিসেম্বরের নির্বাচনে তৃতীয় স্থান পেয়েছেন। অল্পের জন্য বেঁচে গেছে জামানত। জেল থেকেই বিদ্রোহী নুর মোহাম্মদ তুফান মোটরসাইকেল প্রতীকে আট হাজার ১৬৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। সেখানে বর্তমান চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান শফিক নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন পাঁচ হাজার ৪২৮ ভোট।

ঘোষিত বেসরকারি ফল অনুযায়ী বাউসার ১নং ওয়ার্ড সদস্য আবুল কালাম পরাজিত হয়েছেন আব্দুল আজিজের কাছে। ২নং ওয়ার্ড সদস্য শরিফুল ইসলাম হেরেছেন কালাম বিডিআরের কাছে। ৩নং ওয়ার্ড সদস্য মসলেম উদ্দিন হেরেছেন রেজাব উদ্দিনের কাছে। ৪নং ওয়ার্ড সদস্য নাজির উদ্দিন হেরেছেন শাকিম আলির কাছে। ৫নং ওয়ার্ড সদস্য শফিকুল ইসলাম পরাজিত হয়েছেন মহসিন আলির কাছে। সোহেল রানা ৬নং ওয়ার্ডে হেরেছেন আখের উদ্দিনের কাছে।

৭নং ওয়ার্ড সদস্য তুহিন আলি পরাজিত হয়েছেন সাহেব আলির কাছে। ৮নং ওয়ার্ড সদস্য ইমাজ আলি হেরেছেন মুনতাজ আলীর কাছে। ৯নং ওয়ার্ড সদস্য মোহাম্মদ আলী হেরেছেন আব্দুর রহমানের কাছে।

এদিকে শুধু সাধারণ সদস্যই নয়-বাউসার সংরক্ষিত তিন নারী সদস্যও এবারের নির্বাচনে পরাজিত হয়েছেন। ফল অনুযায়ী ১, ২ ও ৩নং ওয়ার্ড সদস্য রাশিদা বেগম হেরেছেন শিরিনা খাতুনের কাছে।

৪, ৫ ও ৬নং সংরক্ষিত আসনের সদস্য রাশেদা বেগম হেরেছেন হামিদা বেগমের কাছে। ৭, ৮ ও ৯নং সংরক্ষিত আসনের সদস্য মাজেরা বেগম পরাজিত হয়েছেন খালেদা বেগমের কাছে।

বাঘা উপজেলা নির্বাচন অফিসসূত্রে জানা গেছে, এবারের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে তিন, সাধারণ সদস্য পদে ৩৫ জন এবং তিনটি সংরক্ষিত নারী আসনে ১২ প্রার্থী ভোটযুদ্ধে অবতীর্ণ হন। তবে পুরনোদের কেউ-ই পুনর্নির্বাচিত হননি।

পুরো পরিষদের পরাজয় প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বাউসা ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের পরাজিত প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান শফিক যুগান্তরকে বলেন, আওয়ামী লীগের কিছু নেতাকর্মী বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে মিলে তাদের সবাইকে পরাজিত করেছে। জনসেবায় ঘাটতির কারণে এমনটি ঘটেছে বলে তিনি মনে করেন না।